আজকের দিনের আন্তর্জাতিক পর্যায়ের শীর্ষ ১০ খবর

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:৫২ পূর্বাহ্ণ, ০৪/০৮/২০২২

এএফপির বিশ্লেষণ
তাইওয়ান নিয়ে নিরাপত্তা–উদ্বেগে চীন
গত মঙ্গলবার রাতে চীনের কড়া হুঁশিয়ারির পরও তাইওয়ান সফরে আসেন ৮২ বছর বয়সী পেলোসি।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান সফর ঘিরে একের পর এক কড়া বক্তব্য দিয়েছে চীন। বিশ্লেষকেরা বলছেন, এই বক্তব্যের মাধ্যমে তাইওয়ান প্রশ্নে যুক্তরাষ্ট্রের পরিবর্তিত নীতি বিষয়ে বেইজিংয়ের গভীর নিরাপত্তা উদ্বেগ প্রকাশ পেয়েছে। একই সঙ্গে অর্থনৈতিক দুর্দশা জনগণের থেকে আড়াল করতেও এই পথ বেছে নিয়েছে চীন। গত মঙ্গলবার রাতে চীনের কড়া হুঁশিয়ারির পরও তাইওয়ান সফরে আসেন ৮২ বছর বয়সী পেলোসি। ২৫ বছরের মধ্যে তাইওয়ান সফর করা সবচেয়ে জ্যেষ্ঠ মার্কিন রাজনীতিবিদ তিনি। রাজধানী তাইপের একটি বিমানবন্দরে পেলোসির সামরিক উড়োজাহাজ অবতরণের কয়েক দিন আগে থেকেই আক্রমণাত্মক ভাষা ব্যবহার করে আসছিল বেইজিং। তাইওয়ান সফর করলে পরিণাম ভোগ করার হুমকি দেওয়াসহ সামরিক শক্তি প্রদর্শনও করেছিল চীন। তাইওয়ান প্রণালিতে গত কয়েক দিনে সামরিক মহড়াও করেছে দেশটি। চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম গ্লোবাল টাইমস-এর সাবেক প্রধান সম্পাদক হু সিজিন বলেছিলেন, বেইজিং জোরপূর্বক পেলোসির উড়োজাহাজকে সরিয়ে দিতে পারত বা গুলি করে ভূপাতিত করতে পারত। সূত্র: প্রথম আলো

পেলোসির সফরের জের
প্রতিক্রিয়া নির্ভর করছে শি চিনপিংয়ের ওপর

কোনো কিছু হিসাবের বাইরে ঘটার সবচেয়ে বড় বিপদ হলো, তা আবারও হওয়ার অনেক আশঙ্কা থাকে। ঠিক একই ঘটনা এখন ঘটছে তাইওয়ানের ক্ষেত্রে।মার্কিন কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ানে আলোচিত সফর করে গেলেন। গত কয়েক দশকের মধ্যে তিনিই তাইওয়ান সফরকারী সবচেয়ে উচ্চপদস্থ মার্কিন কর্মকর্তা।ভবিষ্যতে পেলোসির মতো কারো সফরের পুনরাবৃত্তি হবে না তা যেমন নিশ্চিত করে বলা যায় না, তেমনি তাইওয়ানের কাছাকাছি চীন যে মহড়া শুরু করেছে, সেটিও যে আগামী দিনে আর হবে না তা বলা যাচ্ছে না।কিন্তু চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিংয়ের পরিকল্পনা হয়তো ভিন্ন। হয়তো সে কারণেই সাম্প্রতিক সময়ে তাইপেকে বাড়তি চাপের মুখে রেখেছে বেইজিং।চীনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের মধ্যে যাঁরা যুদ্ধংদেহী তাঁদের জন্য পেলোসির তাইওয়ান সফর আদতে আশীর্বাদই হয়ে দাঁড়িয়েছে। এতে করে তাঁরা যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা জোরদার করার একটি ছুতা পেয়েছেন। সূত্র: কালের কণ্ঠ

তাইওয়ানের চারপাশে চীনের ‘অভূতপূর্ব’ মহড়া শুরু

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির সফরের পর তাইওয়ানের চারপাশে ‘অভূতপূর্ব’ সামকির মহড়া শুরু করেছে চীন।বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় ১২টায় তাইওয়ানের চারপাশে ছয়টি এলাকায় লাইভ ফায়ার মহড়া শুরু হয়। এটি চলবে ৭ আগস্ট পর্যন্ত। আগেই পিএলএ ঘোষণা করেছে যে, বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) থেকে রোববার (৭ আগস্ট) পর্যন্ত তাইওয়ানের চারপাশে সামরিক মহড়া চালানো হবে। এর মধ্যে প্রশিক্ষণ কর্মসূচি ও লাইভ ফায়ার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। পেলোসি তাইওয়ানে আসার পর মঙ্গলবার রাত থেকেই চীন সামরিক তৎপরতা শুরু করে। পরে অর্থনৈতিক বিধিনিষেধও আরোপ করেছে। সূত্র: সমকাল

Nagad

বিশ্বব্যাংক ও এডিবির কাছে ২০০ কোটি ডলার চেয়েছে বাংলাদেশ

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ শক্তিশালী করতে বিশ্বব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) সহায়তা চেয়েছে বাংলাদেশ। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) সূত্রে জানা গিয়েছে, দুই আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছে বাংলাদেশের চাওয়া অর্থের পরিমাণ ২০০ কোটি ডলার। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়াতে বিশ্বব্যাংক ও এডিবির সহায়তা চাওয়া হয়েছে। ব্লুমবার্গ প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ দুটি দাতা সংস্থাকে ঋণ চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছে। প্রত্যেকের কাছে ১০০ কোটি ডলার করে চাওয়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক বাজারে চড়া জ্বালানি মূল্য এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব যেভাবে অর্থনীতিতে পড়ছে, তা মোকাবেলার জন্য এ অর্থ দরকার বলে বাংলাদেশের চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। যদিও সরকারের পক্ষ থেকে বিষয়টির কোনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসেনি। এর আগে গত ২৪ জুলাই বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়ানোর আগাম ব্যবস্থা হিসেবে সরকার আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কাছে ঋণ চায়। এর কয়েকদিন পরই বিশ্বব্যাংক ও এডিবির কাছেও সহায়তা চাইল বাংলাদেশ। সূত্র: বণিক বার্তা

রাশিয়া ইউক্রেন পরিস্থিতি
যুদ্ধবিরতির আশা দেখছেন শ্রোয়েডার

অবশেষে কেউ বললেন রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের শেষ হতে চলেছে। আর তিনি হলেন জার্মানির সাবেক চ্যান্সেলর গেরহার্ড শ্রোয়েডার। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ বন্ধু হিসেবেও পরিচিত তিনি। মূলত এ আশা করছেন ইউক্রেনের খাদ্যশস্য রপ্তানির ওপর থেকে রাশিয়ার অবরোধ তুলে নেওয়া নিয়ে। এ জন্য দুই দেশের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। এ পদক্ষেপ প্রায় পাঁচ মাস ধরে চলা সংঘাতকে যুদ্ধিবিরতির দিকে নিয়ে যেতে পারে বলে মনে করেন তিনি। গতকাল লুক্সেমবার্গভিত্তিক টেলিভিশন আরটিএলকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে শ্রোয়েডার এসব কথা বলেছেন। আলজাজিরা জানায়, সাক্ষাৎকারে বলা হয়েছে, তিনি দিন কয়েক আগে পুতিনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন। গেরহার্ড শ্রোয়েডার বলেছেন, ক্রেমলিন সমঝোতার মাধ্যমে এ সমস্যার সমাধান চায়, এটা একটা সুখবর। এ ক্ষেত্রে শস্য রপ্তানি চুক্তি প্রাথমিক সফলতা। হয়তো শিগগিরই এটি যুদ্ধবিরতিতে গড়াতে পারে। গত সোমবার ইউক্রেনের ওদেসাবন্দর থেকে ২৬ হাজার টন শস্যভর্তি প্রথম জাহাজটি লেবাননের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। ওই দিন স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৮টার দিকে রাজোনি নামে সিয়েরা লিওনের পতাকাবাহী জাহাজটি রওনা করে। মঙ্গলবার জাহাজটি ইস্তাম্বুলে পৌঁছায়। গতকাল সেখানে তুরস্ক, ইউক্রেন, রাশিয়া ও জাতিসংঘের সমন্বয়ে গঠিত জয়েন্ট কন্ট্রোল সেন্টারের (জেসিসি) কমকর্তারা জাহাজের পণ্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করেন। সূত্র: বিডি প্রতিদিন।

তাইওয়ানকে ভাতে মারবে চীন
একশ খাদ্যপণ্য রপ্তানিকারকের ওপর নিষেধাজ্ঞা, মাছ এবং ফল আমদানি বন্ধ

চীনের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে মার্কিন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ানে সফর করেছেন। সামরিক হুমকি দিয়ে ঠেকাতে না পেরে এবার পেলোসির তাইওয়ান সফরের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে কড়া ব্যবস্থা নিল চীন। তাইওয়ানকে নিশানা করে সাঁজোয়া গাড়ি, যুদ্ধবিমান, ট্যাঙ্কের কুচকাওয়াজের পাশাপাশি তাইওয়ানকে এবার ‘ভাতে মারা’র পরিকল্পনা কষছেন শি জিনপিং। ফলস্বরূপ তাইওয়ানের বিরুদ্ধে বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে দেশটি। বুধবার বেইজিংয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, তাইওয়ান থেকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ জিনিস আমদানির ওপরে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হলো। পাশাপাশি দেশটির ১০০ খাদ্য রপ্তানিকারকের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বেইজিং। এমনকি দ্বীপরাষ্ট্রটিতে বালি রপ্তানি স্থগিত করেছে চীন। এদিন চীনের ডেপুটি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জি ফেং মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে জরুরি তলব করে পেলোসির সফরের তীব্র প্রতিবাদ করেন। বৈঠকে চীনের পক্ষ থেকে আবারও সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজন পড়লে সামরিক আক্রমণ করে তাইওয়ান দখল করবে চীন-এমনটা সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। সূত্র: যুগান্তর

চীন ও তাইওয়ান: ক্ষমতার ভারসাম্য আর দুপক্ষের অবস্থান নিয়ে যত তথ্য

যুক্তরাষ্ট্রের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান সফরে যাওয়ার নিন্দা করে চীন একে “চরম বিপজ্জনক” বলে আখ্যা দিয়েছে। পঁচিশ বছরের মধ্যে এই প্রথম শীর্ষস্থানীয় কোন আমেরিকান রাজনীতিক দ্বীপটিতে গেলেন।
চীন তাইওয়ানকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া একটা প্রদেশ হিসাবে দেখে এবং তারা চায় দ্বীপটি আবার বেইজিংএর নিয়ন্ত্রণে আসবে।তবে তাইওয়ান মনে করে তারা একটি স্বাধীন রাষ্ট্র। তাদের নিজস্ব সংবিধান রয়েছে এবং রয়েছে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত নেতৃবৃন্দ।চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বলেছেন তাইওয়ানের সঙ্গে “পুনরেকত্রীকরণ” “অর্জন হবেই” এবং সেই লক্ষ্য অর্জনের জন্য শক্তি প্রয়োগের সম্ভাবনা তিনি উড়িয়ে দেননি। সূত্র: বিবিসি বাংলা।

তাইওয়ানকে ঘিরে বড় ধরনের সামরিক মহড়ার ঘোষণা চীনের

তাইওয়ানকে ঘিরে বড় ধরনের সামরিক মহড়া শুরু করতে যাচ্ছে চীন। এতে নৌ ও বিমান মহড়া অন্তর্ভুক্ত থাকবে। মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির তাইওয়ান ত্যাগের কয়েক ঘণ্টার মাথায় বেইজিংয়ের তরফে এমন ঘোষণা দেওয়া হলো। বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা। বৃহস্পতিবার চীনের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, তাইওয়ানের আশেপাশের ছয়টি এলাকায় স্থানীয় সময় দুপুরে তাদের মহড়া শুরু হবে। রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত গ্লোবাল টাইমসের প্রতিবেদনে ‘পুনর্মিলন অপারেশন’ এর জন্যই এই পদক্ষেপ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। চীনা সামরিক বিশেষজ্ঞ সং ঝংপিংকে উদ্ধৃত করে গ্লোবাল টাইমস বলছে, ‘যে অপারেশনাল পরিকল্পনাগুলো বর্তমানে মহড়া করা হচ্ছে ভবিষ্যৎ সামরিক সংঘাতের ক্ষেত্রে এগুলো সরাসরি যুদ্ধ অভিযানে রূপান্তরিত হবে।’ সূত্র: বাংলাট্রিবিউন।

‘যুক্তরাষ্ট্রের উস্কানিতে ভুক্তভোগী চীন’, তাইওয়ানে সেনামহড়া নিয়ে বেইজিং

যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি সফরকে কেন্দ্র করে তাইওয়ানের চারপাশে সামরিক মহড়া চালাচ্ছে চীন। দেশটি বলছে, দ্বীপটি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের উস্কানির কারণে ভুক্তভোগী হতে হচ্ছে বেইজিংকে। বুধবার ( ৩ আগস্ট) চীনের পরররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে দেওয়া একটি বিবৃতিতে এমনটি বলা হয়। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালইয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনয়িং সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তাইওয়ানের কাছে সাগরে চীনা সামরিক মহড়া চালানো জাতীয় সার্বভৌমত্বকে দৃঢ়ভাবে রক্ষা করার জন্য একটি প্রয়োজনীয় এবং ন্যায্য ব্যবস্থা। পেলোসির তাইওয়ান সফর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উস্কানি, এতে ভুক্তভোগী হচ্ছে চীন। তাইওয়ানের চারপাশে ‘পরিকল্পিত সামরিক অভিযান’ এবং লাইভ ফায়ার ড্রিল ঘোষণা করেছে চীন। সূত্র: বাংলানিউজ

আল-কায়েদার সামনে এখন কী?
জাওয়াহিরির মৃত্যুর মধ্য দিয়ে আল-কায়েদার সন্ত্রাসী হুমকিও শেষ হয়ে যাবে মনে করলে, তা হবে নির্বোধের মত ভাবনা।

একেবারে অপ্রত্যাশিত না হলেও গত সপ্তাহে হঠাৎ আক্রমণে আল-কায়েদার শীর্ষ নেতা আয়মান আল-জাওয়াহিরির মৃত্যুর ঘটনায় অবধারিত যে প্রশ্নটি সামনে আসছে তা হল- আন্তর্জাতিক এই জঙ্গি সংগঠনটির সামনে এখন কী অপেক্ষা করছে? বস্তুত, আল-কায়েদার অবস্থা এখন কী এবং ২০২২ সালে এসে আদৌ এর প্রাসঙ্গিকতা আছে কিনা, সেই প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেষ্টা করেছে বিবিসি। আরবি শব্দ আল-কায়েদার অর্থ ‘ঘাঁটি’। নিষিদ্ধ এই সংগঠনটি বিশ্বজুড়ে পশ্চিমা স্বার্থ সংশ্লিষ্ট জায়গাগুলোতে আক্রমণ চালিয়ে আসছে। এ ছাড়া এশিয়া ও আফ্রিকার পশ্চিমা-ঘেঁষা দেশগুলোর সরকার পতনেও তাদের তৎপরতা দেখা গেছে।১৯৮০ এর দশকে সোভিয়েতবিরোধী যুদ্ধে অংশ নিতে আফগানিস্তানে যাওয়া একদল আরব মুজাহিদের হাত ধরে আফগান-পাকিস্তান সীমান্তে গড়ে ওঠে আল-কায়েদা নেটওয়ার্ক। মাত্র এক প্রজন্ম আগেও আল-কায়েদা ছিল সারা বিশ্বে ঘরে ঘরে পরিচিত একটি নাম, যাদের ‘এক নম্বর হুমকি’ হিসাবে বিবেচনা করত পশ্চিমা দেশগুলো।কেন এই আতঙ্ক? কারণ সে সময় একের পর এক শক্তিশালী, জটিল আক্রমণ চালিয়ে সফল হচ্ছিল আল-কায়েদা। আর তাদের সেই সাফল্য আরও বেশি উগ্রবাদীদের এ সংগঠনে যুক্ত হতে অনুপ্রাণিত করছিল। ১৯৯৮ সালে কেনিয়া ও তানজানিয়ায় যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসে পর পর বোমা হামলা চালিয়েছিল আল-কায়েদা, তাতে যারা মারা গিয়েছিল, তাদের বেশিরভাগই আফ্রিকার নাগরিক। সূত্র: বিডি নিউজ