আজকের দিনের জাতীয় পর্যায়ের শীর্ষ ১০ খবর

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ৯ আগস্ট ২০২২, ৭:৩৩ অপরাহ্ণ

তুরাগে বিস্ফোরণে দগ্ধ ৮ জনের ৬ জনই মারা গেলেন

রাজধানীর তুরাগের কামারপাড়ায় ভাঙারির দোকানে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। তাঁর নাম আল আমিন (৩০)। এ নিয়ে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ আটজনের মধ্যে ছয়জনের মৃত্যু হলো।
গতকাল সোমবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আল আমিন। তাঁর বাড়ি জামালপুর সদরে। তাঁর বাবার নাম মুছা মিয়া। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন আরও দুজন।বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক এসএম আইউব হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, আল আমিনের শরীরের ৭৫ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দগ্ধ দুজনের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া প্রথম আলোকে বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য আল আমিনের লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে। সূত্র: প্রথম আলো

বাজারদর
৫২ টাকার নিচে কোনো চাল নেই

রাজধানীর বাজারে ৫২ টাকার নিচে কোনো চাল মিলছে না। সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয় যে চাল, সেই ব্রি ধান-২৮-এর চালের কেজি গতকাল সোমবার খুচরা বাজারে ছিল ৫৫ টাকা। আর চিকন চালের মধ্যে নাজিরশাইল ছিল ৮৫ টাকা কেজি।রাজধানীর একাধিক বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চার দিনের ব্যবধানে পাইকারিতে দুই থেকে পাঁচ টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে।আর বাজারভেদে খুচরায় কেজিতে বৃদ্ধি পেয়েছে পাঁচ থেকে ১৫ টাকা পর্যন্ত। ফলে খুচরা বাজারে চাল এখন ৫৫ টাকার নিচে মিলছে না।পাইকারি চাল ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ রাইস মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য মতে, গতকাল রাজধানীর পাইকারি বাজারগুলোতে মিনিকেট চাল বিক্রি হয়েছে ৭০ টাকায়। গত ৪ আগস্ট ছিল ৬৫ টাকা। ৪ আগস্ট বিক্রি হওয়া ৪৭ টাকার মোটা চাল গতকাল বিক্রি হয়েছে ৪৯ টাকায়। ৬৬ টাকার নাজিরশাইল ৬৭ টাকা, ৭১ টাকার কাটারিভোগ ৭৩ টাকা, ৭৮ টাকার বাসমতী ৮২ টাকা এবং ১০৮ টাকার চিনিগুঁড়া বিক্রি হয়েছে ১১০ টাকায়। সূত্র: কালের কণ্ঠ

ট্রাক ভাড়াও বেড়ে গেল ৫০ শতাংশ
জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার প্রেক্ষাপটে অন্তত ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে পণ্য পরিবহনের ভাড়া। ডিজেলের দর সাড়ে ৪২ শতাংশ বাড়লেও ট্রাক-কাভার্ডভ্যান ও পিকআপ মালিক-চালকরা তাঁর চেয়ে বেশি ভাড়া বাড়ানোর ব্যাপারে দাঁড় করাচ্ছেন খোঁড়া যুক্তি। তাঁরা বলছেন, বর্ধিত দরের সমান ভাড়া বাড়ালে তাঁদের সমন্বয় হয় না। কারণ জ্বালানি তেলের দর বাড়ার ফলে জীবনযাত্রার খরচও বাড়ে। সেই খরচ পণ্য পরিবহনের ভাড়া থেকেই তুলতে হয়। গত শুক্রবার রাত ১২টা থেকে সরকার জ্বালানি তেলের দর পুনর্নির্ধারণ করে। প্রতি লিটার ডিজেলের দর করা হয় ১১৪ টাকা, আগে যা ছিল ৮০ টাকা। ৫০ শতাংশ ভাড়া বেড়ে যাওয়ায় যে পণ্য পরিবহনে আগে ১০ হাজার টাকা গুনতে হতো, এখন দিতে হচ্ছে ১৫ হাজার টাকা।বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন মজুমদার সমকালকে বলেন, অতীতে যে হারে ডিজেলের দাম বাড়ানো হয়েছে, সেই হারে ট্রাক-কাভার্ডাভ্যানের ভাড়া বাড়ানো হয়েছিল। এবারও তাই করা হয়েছে। তবে বাস ভাড়ার মতো কোনো অফিস আদেশ জারি করা হয়নি। এ ক্ষেত্রে কোনো মালিক ভাড়া কম নিতে চাইলেও নিতে পারেন। বেশি নিলেও সমিতির কিছু করার নেই। সমকাল

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির উত্তাপ বাজারে
নিম্ন ও মধ্যবিত্তের হাঁসফাঁস
করোনা মহামারি ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে সৃষ্ট সংকটে নিম্ন ও মধ্যবিত্তের জীবনযাত্রায় একরকম হাঁসফাঁস অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। প্রয়োজনীয় সব পণ্যের মূল্য ঊর্ধ্বগতি। এ সময় বেড়েছে গ্যাস, বিদ্যুতের দামও। সেখান থেকে পরিত্রাণের আগেই নতুন করে যোগ হয়েছে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির উত্তাপ, যা ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্র। এর প্রভাবে আরেক দফা বেড়েছে নিত্যপণ্যের দাম।আর গণপরিবহণের ভাড়া বৃদ্ধিকে কেন্দ্র করে যাত্রীদের ভোগান্তির মাত্রাও আরও চরমে উঠেছে। পাশাপাশি নতুন করে সকাল ও বিকালের নাশতা তৈরির উপকরণের দাম আরেক দফা বাড়ানোর প্রস্তুতি চলছে। ফলে আয় না বাড়লেও সব শ্রেণির মানুষের ব্যয় হু হু করে বাড়ছে। সার্বিক পরিস্থিতিতে অসহনীয় দুর্ভোগে পড়েছে নিম্ন ও মধ্যবিত্তের পরিবার।
এদিকে গত বছর থেকে ভোজ্যতেলের মূল্যবৃদ্ধি মানুষকে অস্থির করে তুলেছে। পাশাপাশি বেড়েছে চিকিৎসা ও শিক্ষা ব্যয়। বেড়েছে বাড়ি ভাড়াও। ফলে জীবনযাপনে সব খাতেই নিজ থেকেই একরকম ‘রেশনিং’ করতে বাধ্য হচ্ছে প্রায় সব শ্রেণির মানুষ। সূত্র: যুগান্তর

তাপ সংবেদনশীলতার অতি উচ্চঝুঁকিতে ঢাকার ছয় থানা

ঢাকার বাতাস ও ভূপৃষ্ঠের উষ্ণতা প্রতিনিয়তই বাড়ছে। ২০০০ সাল থেকে পরের ২০ বছরে ঢাকার তাপমাত্রা যেকোনো গ্রামাঞ্চলের চেয়ে ২ দশমিক ৭৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়েছে। মূলত রাজধানীর জনসংখ্যার উচ্চঘনত্ব, কংক্রিটের আচ্ছাদন বেড়ে যাওয়া, জলাশয় ও সবুজায়ন কমে যাওয়াসহ বেশ কয়েকটি কারণে তাপমাত্রা বাড়ছে। জনবহুল এ নগরীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি, নাগরিকদের বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি করছে। সাম্প্রতিক একটি গবেষণার তথ্য বলছে, তাপ সংবেদনশীলতার দিক থেকে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে রাজধানীর চকবাজার, যাত্রাবাড়ী, কদমতলী, লালবাগ, পল্লবী ও শ্যামপুর। শহরের কোনো এলাকার তাপমাত্রা ও ভূপৃষ্ঠের উষ্ণতা পার্শ্ববর্তী গ্রাম্য এলাকার চেয়ে অতিরিক্ত হারে বেড়ে গেলে তখন সে অঞ্চলকে আরবান হিট আইল্যান্ড বা নগর দাবদাহ অঞ্চল বলে। রাজধানীর নগর দাবদাহ অঞ্চল এবং এর ঝুঁকির বিষয়গুলো নিয়ে সম্প্রতি একটি গবেষণা করে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের একটি দল। গবেষণায় পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার ৪১টি থানাকে ঝুঁকি বিবেচনায় পাঁচ ভাগে ভাগ করা হয়। এতে দেখা গিয়েছে, অতি উচ্চঝুঁকিতে রয়েছে ছয়টি, উচ্চঝুঁকিতে ১১টি, মধ্যম ঝুঁকিতে ১১টি, নিম্নঝুঁকিতে পাঁচটি এবং অতি নিম্নঝুঁকিতে রয়েছে আটটি থানা। এছাড়া ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার ৮৭ শতাংশই আরবান হিট আইল্যান্ড বা নগর দাবদাহ অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত হয়ে পড়েছে বলেও গবেষণায় উঠে এসেছে। সূত্র: বণিক বার্তা

ভাড়া নৈরাজ্যের চাপে মধ্যবিত্ত
প্রতিদিনই বাগবিতণ্ডা যাত্রীদের সঙ্গে, পণ্য পরিবহনে দাম বৃদ্ধিতে বাজারেও উত্তাপ

গণপরিবহনে ভাড়া নৈরাজ্যের কারণে ভয়াবহ চাপে পড়েছে মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তের মানুষ। একসঙ্গে যাতায়াত ভাড়া এবং নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় সাধারণ মানুষের পক্ষে চাপ সামলানো কঠিন হয়ে পড়েছে। শুক্রবার সব ধরনের জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর পরিপ্রেক্ষিতে পরদিন থেকেই সারা দেশে নতুন ভাড়া নির্ধারণ করেছে সরকার। কিন্তু সেই বাড়তি ভাড়াও অনেক পরিবহন মালিক-শ্রমিক মানতে চান না। সারা দেশে যথেচ্ছ হারে ভাড়া আদায়ের কারণে প্রতিদিনই বিভিন্ন রুটে পরিবহন কর্মীদের সঙ্গে যাত্রীদের বাগবিতণ্ডা হচ্ছে। এদিকে পণ্য পরিবহন ভাড়া বাড়ায় বাজারে নিত্যপণ্যের দামও বেড়ে গেছে অস্বাভাবিক হারে। যাত্রী পরিবহন ভাড়া এবং বাজারের উত্তাপ সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে সাধারণ মানুষ। তারা অন্য খাতের খরচ কমিয়ে বাড়তি ব্যয়ের ভার লাঘবের চেষ্টা করছেন। এর আগে গত শুক্রবার রাতে লিটারপ্রতি ডিজেল ৮০ টাকা থেকে ৩৪ টাকা বাড়িয়ে ১১৪ টাকা, কেরোসিন ৩৪ টাকা বাড়িয়ে ১১৪ টাকা, অকটেন ৪৬ টাকা বাড়িয়ে ১৩৫ টাকা এবং পেট্রোল ৪৬ টাকা বাড়িয়ে ১৩০ টাকা নির্ধারণ করে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ। এর পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার রাতে গণপরিবহনের ভাড়া ১৬-২২ শতাংশ বাড়িয়ে পুনর্নির্ধারণ করা হয়। এতে নগর পরিবহনে বাস ও মিনিবাসে ভাড়া ৩৫ পয়সা, দূরপাল্লায় বাস ভাড়া ৪০ পয়সা বাড়িয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। ফলে দূরপাল্লার বাসে ভাড়া কিলোমিটারপ্রতি ২.২০ টাকা, মহানগর পর্যায়ে কিলোমিটারে বাসে ২.৫০ টাকা, মিনিবাসে ২.৪০ টাকা ভাড়া নির্ধারণ করা হয়। সূত্র: বিডি প্রতিদিন।

বন্যা ঝরাবে কত শিক্ষাজীবন
দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত করছে বন্যা। আর প্রায় প্রতি বছর এ ধাক্কা সামলাতে হচ্ছে বলে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সিলেট বিভাগের শিশুরা।

পরিবারের অভাব দূর করার যুদ্ধে স্কুলের বই-খাতা তুলে রেখে সিলেটের এক বাসাবাড়িতে কাজ নিতে হয়েছিল সুনামগঞ্জের মাজেদা আক্তার ঝর্নাকে। আট মাস পর নিজের বাড়ি ফিরলেও ক্লাসে আর ফেরা হয়নি তার।দোয়ারাবাজার উপজেলার পাণ্ডারগাঁও ইউনিয়নের হিম্মতের গাঁও গ্রামে বার বার আসা উজানের ঢলে সব হারিয়েছে ঝর্নার পরিবার। তার মা জুলেখা বেগম জানান, ঝর্নার বাবা একটি চালকলে কাজ করে ৫ হাজার টাকা পান। সংসার চালাতে ছোট ছেলে শাহিনুর আক্তারকেও প্রাথমিকের পড়া শেষে খামারের কাজে পাঠাতে হয়েছে।টিকে থাকাই যাদের জন্য কঠিন, তাদের সন্তানদের পড়ালেখার স্বপ্ন কীভাবে শেষ হয়ে যায়, তা শোনা গেল জুলেখার কণ্ঠে।“বন্যার কারণে ঘর-বাড়ি ভাইঙা গেছে। অভাবের লাইগাই স্কুল ছাড়াইয়া দিয়া মাইয়ারে এক বাড়িতে কামে দিছিলাম, পোলারেও দিছি আরেক কামে। কিছু পয়সা যদি আসে।” সূত্র: বিডি নিউজ

কারবালার স্মরণে তাজিয়া মিছিল

হিজরি সাল অনুসারে ১০ মহরম তথা আশুরা মুসলিম বিশ্বে ত্যাগ ও শোকের দিন। ঘটনাবহুল এ দিনে বর্তমান ইরাকের অন্তর্গত কারবালা প্রান্তরে মুয়াবিয়ার হাতে শহীদ হন হজরত মুহাম্মদ (সা.) এর দৌহিত্র ইমাম হোসেন। মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশেও যথাযোগ্য ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পালিত হচ্ছে আশুরা। এদিন সকাল ১০টায় রাজধানীর হোসেনি দালান থেকে কারবালার মর্মান্তিক শোকের স্মরণে তাজিয়া মিছিল শুরু হয়েছে। করোনা মহামারির কারণে ২ বছর পর পূর্নাঙ্গ পরিসরে তাজিয়া মিছিল অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মিছিল সমন্বয়ের মূল দায়িত্ব পালন করছে হোসেনি দালান ইমামবাড়া ম্যানেজমেন্ট কমিটি।তাজিয়া মিছিল সাজানো হয়েছে কারবালার শোকের নানা প্রতিকৃতি দিয়ে। বিবি ফাতেমার স্মরণে মিছিলের শুরুতেই দু’টি কালো গম্বুজ বহন করা হচ্ছে। অংশগ্রহণকারীরা বহন করছেন বিভিন্ন নিশান।মিছিলে দু’টি ঘোড়া রয়েছে যার মধ্যে একটিকে রং দিয়ে রক্তের রূপ দেওয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে ইমাম হোসেন যখন কারবালায় যান তখন ঘোড়াটি এক রকম থাকে, আবার যুদ্ধের শেষে রক্তাক্ত ঘোড়ার অবস্থা তুলে ধরা হয়েছে। সূত্র: বাংরানিউজ