আওয়ামী লীগের নতুন কাউন্সিল: নতুন পদে স্থান পেয়েছেন যারা

বিশেষ প্রতিবেদকবিশেষ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৩:৩০ অপরাহ্ণ, ২১/১২/২০১৯

আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন শেখ হাসিনা ও ওবায়দুল কাদের। শনিবার (২১ ডিসেম্বর) রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে নবগঠিত কমিটিতে বিভিন্ন পদে যাদের নির্বাচিত হওয়ার সংবাদ পাওয়া গেছে। একনজরে দেখে নিন কার কোন পদ।

সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য:

সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যরা হলেন, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, বেগম মতিয়া চৌধুরী, মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফরউল্লাহ, সাহারা খাতুন, নুরুল ইসলাম নাহিদ, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, অ্যাডভোকেট পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্য, ড. আব্দুর রাজ্জাক, লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, অ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নান খান, অ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন খসরু, শাজাহান খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক:

মাহবুব উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, ড. হাছান মাহমুদ, বাহাউদ্দিন নাছিম।

সাংগঠনিক সম্পাদক:

Nagad

আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, এস এম কামাল হোসেন, মির্জা আজম, আহমদ হোসেন, বি এম মোজাম্মেল হক।

সম্পাদকীয় পদে জায়গা পেলেন যারা- এর মধ্যে শাম্মী আহমেদকে আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক, অ্যাডভোকেট নজিবুল্লাহ হিরুকে আইন বিষয়ক সম্পাদক, ফরিদুন্নাহার লাইলীকে কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক, সুজিত রায় নন্দীকে ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক, বিপ্লব বড়ুয়াকে দপ্তর সম্পাদক, আবদুস সোবহান গোলাপকে প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, দেলোয়ার হোসেনকে বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক, ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সবুরকে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক, মেহের আফরোজ চুমকিকে মহিলা বিষয়ক সম্পাদক, মৃনাল কান্তি দাসকে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক, হারুনুর রশীদকে যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক, শামসুন্নাহার চাপাকে শিক্ষা ও মানব সম্পাদক বিষয়ক সম্পাদক, অসীম কুমার উকিলকে সংষ্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক এবং ডা. রোকেয়াকে স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক করা হয়েছে।

একই সঙ্গে স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড ও সংসদীয় বোর্ডে সদস্যদের নামও ঘোষণা করা হয়।

সংসদীয় বোর্ড:

শেখ হাসিনা, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, কাজী জাফর উল্লাহ, ওবায়দুল কাদের, মো. রাশিদুল আলম। বাকি নামগুলো পরবর্তীতে ঘোষনা করা হবে। এক্ষেত্রে বিভাগীয় দিকগুলো বিবেচনায় নিতে চান বলে জানান শেখ হাসিনা।

স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড :

শেখ হাসিনা, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, কাজী জাফর উল্লাহ, মোহাম্মদ নাসিম, ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান, ওবায়দুল কাদের, মো. রাশিদুল আলম, মাহবুব-উল-আলম হানিফ, ডা. দীপু মণি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, মো. আব্দুর রহমান, ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ।

উপদেষ্টা পরিষদ :

৫১ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদে আছেন— ডা. এস এ মালেক, আবুল মাল আব্দুল মুহিত, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, অ্যাডভোকেট মো. রহমত আলী, এইচ টি ইমাম, ড. মশিউর রহমান, প্রফেসর ড. আলাউদ্দিন আহমেদ, অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ, সৈয়দ আবু নসর অ্যাডভোকেট, শ্রী সতীশ চন্দ্র রায়, প্রফেসর ড. আব্দুল খালেক, প্রফেসর ডা. রুহুল হক, ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি, কাজী আকরাম উদ্দীন, অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান, ড. অনুপম সেন, প্রফেসর ড. হামিদা বানু, প্রফেসর ড. মো. হোসেন মনসুর, অধ্যাপিকা সুলতানা শফি, এ এফ এম ফখরুল ইসলাম মুন্সী, অ্যাম্বাসেডর মোহাম্মদ জমির, গোলাম মওলা নকশাবন্দি, ড. মির্জা এমএ জলিল, ড. প্রণব কুমার বড়ুয়া, মে. জে. আব্দুল হাফিজ মল্লিক পিএসসি (অব.), প্রফেসর ডক্টর সাইদুর রহমান খান, ড. গওহর রিজভী, মো. রশিদুল আলম, স্থপতি ইয়াফেস ওসমান, কাজী সিরাজুল ইসলাম, আলহাজ্ব মকবুল হোসেন, মোজাফফর হোসেন পল্টু, অ্যাডভোকেট আবদুল বাসেত মজুমদার, মুকুল বোস, সালমান এফ রহমান, ইনাম আহমেদ চৌধুরী, আতাউর রহমান, জয়নাল হাজারী। বাকি পদগুলো পরে আলোচনা করে পূরন করা হবে বলে জানান আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

এবারের জাতীয় কাউন্সিলের থিম হচ্ছে ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে গড়তে সোনার দেশ, এগিয়ে চলেছি দুর্বার, আমরাই তো বাংলাদেশ’।

সম্মেলনে সারাদেশ থেকে আসা প্রায় সাত হাজার কাউন্সিলর অংশ নেন। শুক্রবার বর্ণিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগের উদ্বোধনী পর্ব শেষ হয়। আজ হয় দ্বিতীয় অধিবেশন। এ অধিবেশনেই কমিটি করা হয়।

আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি নির্বাচনের জন্য দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ইউসুফ হোসেন হুমায়ুনকে প্রধান করে তিন সদস্যের নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়। অন্য সদস্যরা হলেন উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মশিউর রহমান ও সাইদুর রহমান। আজ দ্বিতীয় অধিবেশনের শুরুতে বর্তমান কমিটির নেতারা সভা করে কমিটির বিলুপ্তি ঘোষণা করেন। এরপর সবাই কাউন্সিলরদের সারিতে চলে আসেন। মঞ্চে বসেন নির্বাচন কমিশনের সদস্যরা। এরপর শুরু হয় নেতা নির্বাচনের কার্যক্রম।

সারাদিন/২১ডিসেম্বর/আরটি