জাতীয় আজকের দিনের জাতীয় পর্যায়ের শীর্ষ ১০ খবর

সারাদিন ডেস্কসারাদিন ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:৪৮ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৯, ২০২৩

আওয়ামী লীগ নেতার হলফনামায় লেখা ‘জাতীয় পার্টির প্রার্থী হতে ইচ্ছুক’

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জ-৫ আসনে (ছাতক ও দোয়ারাবাজার) এবার দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামিম আহমদ চৌধুরী। কিন্তু তিনি নৌকা না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ জন্য তিনি নির্বাচনী এলাকার মোট ভোটারের মধ্যে ১ শতাংশ ভোটারদের সমর্থনসহ তালিকাও মনোনয়নপত্রের সঙ্গে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের জমা দিয়েছেন। তাঁর মনোনয়নপত্র বৈধ বলে বিবেচিত হয়েছে।
কিন্তু গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় তাঁর হলফনামার একটি কপি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। তাতে দেখা যায়, হলফনামার প্রথম পাতায় নাম, পিতা-মাতার নাম, ঠিকানা ও নির্বাচনী এলাকার নম্বর ও নামের পরই রয়েছে শপথ অংশ। ওই স্থানে শপথে লেখা ‘নির্বাচনী এলাকা হইতে জাতীয় পার্টির প্রার্থীরূপে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করিতে ইচ্ছুক’। হলফনামার বিষয়ে কথা বলতে শামিম আহমদ চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ‘নির্বাচনী এলাকা হইতে জাতীয় পার্টির প্রার্থীরূপে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করিতে ইচ্ছুক’ কথাটি লেখেননি বলে জানান। ভুলে এটি হয়েছে কি না, তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি সঠিকভাবে মনোনয়নপত্র দিয়েছি। আমি আওয়ামী পরিবারের সন্তান। আমি জাতীয় পার্টির কথা লিখতে যাব কেন। এটা আমার বিরোধীরা এডিট করে ফেসবুকে প্রচার করে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।’ সূত্র: প্রথম আলো

সৌদি যাওয়া কর্মীদের ৪৯% ফেরত আসছে

সরকারি হিসাবে চলতি বছরের ১১ মাসে সৌদি আরবে গেছেন চার লাখ ৫১ হাজার ৫০২ জন কর্মী। আর অভিবাসন গবেষণা সংস্থা রামরুর হিসাবে, সৌদি আরবে প্রতি মাসে যত কর্মী যান তার ১৪ শতাংশ দেশে ফেরত আসছেন। আর এক বছরের মধ্যে ফেরত আসেন ৪৯ শতাংশ কর্মী।তবে বিদেশে কর্মী পাঠানোর কাজে যুক্ত রিক্রুটিং এজেন্সিগুলোর সমিতি বায়রা বলছে, আগে কিছুটা এমন থাকলেও ফেরত আসার সংখ্যা এখন অনেক কম। সাম্প্রতিক সময়ে কিছুটা সংকটে আছে সৌদি শ্রমবাজার। দেশটিতে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে কর্মীদের সঙ্গে করা চুক্তি মানা হচ্ছে না। এতে কাজ না পাওয়া থেকে শুরু করে নানা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন বাংলাদেশি কর্মীরা। ফলে অনেক কর্মীকে দেশে ফিরে আসতে হচ্ছে। সূত্র; কালের কণ্ঠ

পাঁচ মিনিটেই কেন্দ্রের বাইরে যায় প্রশ্নপত্র

পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে তারা হতে পারতেন আদর্শ শিক্ষক। পাঠ্যক্রমের পাশাপাশি কোমলমতি শিশুদের শেখাতেন নীতি-নৈতিকতার পাঠ। অথচ তাদেরই কেউ কেউ জড়িয়েছেন চরম অনৈতিকতায়। জালিয়াত চক্রের সঙ্গে যোগসাজশে ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে তারা নকল করে পরীক্ষায় পাসের চেষ্টা চালিয়েছেন। জনপ্রতি ১০-১৫ লাখ টাকার বিনিময়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হওয়ার ছক কষেছিলেন তারা। পরিকল্পনা অনুযায়ী পরীক্ষা শুরুর ৫-১০ মিনিটের মধ্যেই প্রশ্নপত্র চলে যায় কেন্দ্রের বাইরে। এর পর একটি চক্র দ্রুত প্রশ্নপত্রের সমাধান করে কেন্দ্রের ভেতরে পরীক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছে দেয়। তবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযান ও পরীক্ষা ব্যবস্থাপনায় যুক্তদের প্রচেষ্টায় তাদের সেই অপচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে নিয়োগ পরীক্ষায় জালিয়াতিতে জড়িত চক্রের ১৩ সদস্য, পরীক্ষার্থীসহ ১২২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মধ্যে গাইবান্ধায় র‍্যাবের অভিযানে ধরা পড়েছেন চক্রের ৩৭ জন। পাঁচজন কেন্দ্রের বাইরে থেকে সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করেন। সূত্র; সমকাল

Nagad

শরিকদের সঙ্গে আসন বণ্টন
আ.লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী সমঝোতায় বাধা
স্বতন্ত্রদের বসানোর নিশ্চয়তা চায় শরিকরা রাজি হচ্ছে না ক্ষমতাসীনরা

আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী ইস্যুতে আটকে আছে ১৪ দলের আসন সমঝোতা। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতা এড়াতে এবং অংশগ্রহণমূলক ভোটের স্বার্থে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বিষয়ে নমনীয় আওয়ামী লীগ। অন্য যে কোনো নির্বাচনে ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান থাকলেও এবার ঠিক উলটো অবস্থানের ক্ষমতাসীনরা। এতেই বেকায়দায় পড়েছে আওয়ামী লীগের শরিকরা। তাদের দাবি-সমঝোতার আসনগুলোতে আওয়ামী লীগের কোনো স্বতন্ত্র প্রার্থী থাকবে না। এ বিষয়ে পূর্ণ নিশ্চয়তা চায় শরিকরা। ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে আসন নিয়ে আনুষ্ঠানিক ও অনানুষ্ঠানিক একাধিক বৈঠকে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তুলেছেন তারা। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো ইতিবাচক ইঙ্গিত মেলেনি। এদিকে হাইকমান্ড থেকে একাধিকবার বলা হয়েছে-দলের স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বসতে বলবেন না। দলীয় প্রার্থীদেরও প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচনেই জিতে আসতে হবে। এমন ঘোষণায় প্রায় প্রতিটি আসনেই আওয়ামী লীগের এক বা একাধিক স্বতন্ত্র প্রার্থী নেমেছেন ভোটের লড়াইয়ে। শরিকদের প্রত্যাশানুযায়ী আসন দিতে হলে অনেক প্রার্থীকে বসতে বা নিষ্ক্রিয় থাকার নির্দেশ দিতে হবে। বর্তমান অবস্থার প্রেক্ষাপটে ভোটের মাঠে সেটা কি ধরনের প্রভাব ফেলবে তা নিয়ে চিন্তিত সংশ্লিষ্টরা। অথচ কিছু আসন ছাড়তেই হবে। এ অবস্থায় স্বতন্ত্র বাধা কাটাতে কি কৌশল নেওয়া হবে তা নিয়ে চলছে পর্যালোচনা। সূত্র; যুগান্তর

খাদ্যমন্ত্রীর সম্পদ বেড়েছে ৮৬ গুণ

জনপ্রতিনিধিদের সম্পদ নিয়ে দেশব্যাপী এখন আলোচনা তুঙ্গে। জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে নির্বাচন কমিশনে দাখিল করা হলফনামায় অধিকাংশ জনপ্রতিনিধির সম্পদ আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে। কারও কারও সম্পদ বেড়েছে শত গুণের বেশি। আমাদের জেলা প্রতিনিধি ও নিজস্ব প্রতিবেদকরা জনপ্রতিনিধিদের সম্পদের তুলনামূলক বিশ্লেষণ করে পাঠিয়েছেন। নওগাঁ : ২০০৮ সালে সংসদ নির্বাচনের হলফনামা দাখিলের সময় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের পরিমাণ ছিল ১০ লাখ ৪৩ হাজার ৫০০ টাকা। নগদ টাকা, কৃষি-অকৃষি জমি, বাড়ি গাড়ি, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা টাকা, সঞ্চয়পত্র ও আমানত হিসেবে ব্যাংক বিনিয়োগ করা টাকাসহ বর্তমানে তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৯ কোটি ৫ লাখ ১২ হাজার ৬৯ টাকা। যা ২০০৮ সালের তুলনায় ৮৬ গুণের বেশি। ১৫ বছরের ব্যবধানে সাধন চন্দ্র মজুমদারের বার্ষিক আয় বেড়েছে ১৫৭ গুণের বেশি। ২০১৮ সালে এমপি নির্বাচিত হয়ে খাদ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পান তিনি। সাধন চন্দ্র মজুমদার তাঁর হলফনামায় বরাবরই পেশা হিসেবে উল্লেখ করেছেন ব্যবসা ও কৃষি। সূত্র; বিডি প্রতিদিন।

জাতীয় গ্রন্থাগারে পাঠক কমেছে

আর্কাইভস ও গ্রন্থাগার অধিদপ্তরের বাংলাদেশ জাতীয় গ্রন্থাগারে বিশাল সংগ্রহ থাকলেও ব্যবহার কমে যাচ্ছে। প্রচারের অভাবে দিনের পর দিন অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে থাকছে এসব বই ও পত্রপত্রিকা। গ্রন্থাগারের ব্যবস্থাপনাও সনাতন পদ্ধতির। গত সাত বছরের হিসাবে দেখা গেছে, গ্রন্থাগার ব্যবহার কমছে। ব্যবহারকারীরা বলছেন, এখানে এমন একটি প্রতিষ্ঠান আছে, সেটাই অনেকে জানেন না। অধিদপ্তর বলছে, প্রচার ও দক্ষ জনবলের অভাবে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জন করতে পারছে না প্রতিষ্ঠানটি। গত বুধবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে জাতীয় গ্রন্থাগারে গিয়ে দেখা যায়, তাকের মধ্যে বইগুলো এলোমেলোভাবে পড়ে আছে। কোনো কোনো তাকে কোন বিষয়ের বই, তা উল্লেখ নেই। কিছু তাকে নানা বিষয়ের বই একসঙ্গে জড়ো করে রাখা। সূত্র; আজকের পত্রিকা ।

খাতুনগঞ্জে হঠাৎ পেঁয়াজ উধাও

ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করার খবর প্রকাশের পর হঠাৎ চট্টগ্রামে খাতুনগঞ্জের আড়তগুলো থেকে পেঁয়াজ উধাও হয়ে গেছে। বন্ধ হয়ে গেছে পাইকারি বাজারে বেচাকেনা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, এমনিতেই গত কয়েক দিন ধরে আড়তগুলোতে পেঁয়াজের সরবরাহ কম ছিল। তার ওপর ভারতীয় পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের খবর পেয়ে আড়তে থাকা পেঁয়াজ সরিয়ে নিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত কয়েক দিন ধরে পাইকারি বাজারে ১০৩ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছিল ভারতীয় পেঁয়াজ। আর খুচরায় বিক্রি হচ্ছিল ১১০ টাকা কেজি। গতকাল দুপুরের দিকে চট্টগ্রামের ভোগ্যপণ্যের পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানির খবর জানাজানি হওয়ার পর আড়তদাররা পেঁয়াজ বিক্রি কমিয়ে দেন। সূত্র; দেশ রুপান্তর

‘মানবাধিকার দিবসে বাধা দিলে ঘেরাও’

‘মানবাধিকার দিবসে বাধা দিলে ঘেরাও!’ দেশ রূপান্তরের শিরোনাম। খবরে বলা হচ্ছে, আগামীকাল ১০ ডিসেম্বর (রোববার) বিশ্ব মানবাধিকার দিবসে পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাজধানী ঢাকা এবং সারা দেশে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবে বিএনপিসহ সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। রাজধানী ঢাকায় বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এই কর্মসূচি সামনে রেখে প্রস্তুতি নিচ্ছে ঢাকা মহানগর বিএনপি।দলটির নেতারা বলেছেন, তারা শান্তিপূর্ণভাবে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবেন। কর্মসূচিতে ‘গুম, খুন, ক্রসফায়ার ও কারা নির্যাতনের শিকার’ দলের নেতাকর্মীদের পরিবারের সদস্যরা অংশ নেবেন। এ ছাড়া ঢাকা মহানগর বিএনপির নেতাকর্মীরা অংশ নেবেন। সূত্র: বিবিসি বাংলা।

ভোটে জাতিসংঘের সহযোগিতা চেয়ে চিঠি মোমেনের

ভোটকে সামনে রেখে বিভিন্ন দিক থেকে ‘রাজনৈতিক চাপে’ থাকার কথা তুলে ধরে নির্বাচন প্রক্রিয়ায় জাতিসংঘের সহযোগিতা চেয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। নভেম্বর মাসের শেষে জাতিসংঘ মহাসচিবের নির্বাহী দপ্তরের শেফ দ্য কেবিনেট আর্ল কুর্টনি রেটর বরাবর ওই চিঠি পাঠালেও তা প্রকাশ পেয়েছে শুক্রবার।ওই চিঠিতে শান্তিরক্ষা মিশনসহ জাতিসংঘের বিভিন্ন কার্যক্রমে বাংলাদেশের সম্পৃক্ততার কথা তুলে ধরে তিনি লেখেন, “সক্রিয় ও সহযোগিতাপূর্ণ সদস্য রাষ্ট্র হিসাবে বাংলাদেশের প্রত্যাশা হলো, রাজনৈতিক উন্নতি এবং আমাদের জনগণের সামাজিক-অর্থনৈতিক মুক্তির যাত্রায় জাতিসংঘ সহযোগিতা ও সহায়তা অব্যাহত রাখবে। সূত্র: বিডি নিউজ

মার্চ থেকে জ্বালানি তেলের স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণ
আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ঋণের শর্ত পূরণে ২০২৪ সালের মার্চ মাস থেকে আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে জ্বালানি তেলের স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণ পদ্ধতি কার্যকর করার পরিকল্পনা নিয়েছে বাংলাদেশ। স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণে যে খসড়া ফর্মুলা তৈরি করা হয়েছে, সেটি আগামী ১২ ডিসেম্বর আইএমএফের পরবর্তী বোর্ড সভার আগেই চূড়ান্ত হবে। ওই সভায় বাংলাদেশের জন্য অনুমোদন করা ৪.৭ বিলিয়ন ডলার ঋণের দ্বিতীয় কিস্তি ছাড় হবে কি না, তার সিদ্ধান্ত হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চূড়ান্ত ফর্মূলার অনুমোদন দেওয়ার পর তা বাস্তবায়নের কার্যক্রম শুরু করবে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি)।জ্বালানি তেল আমদানি, প্রক্রিয়াকরণ, মজুত, বিতরণ ও বিক্রির জন্য সরকারের পক্ষে দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থা বিপিসির একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।তিনি জানান, জ্বালানি তেলের স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণ পদ্ধতি চালুর সমস্ত প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এখন প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন নেওয়া হবে। আগামী ৭ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরে নতুন সরকারের অধীনে তা কার্যকর করা হবে। সূত্র: বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড।